Cinemaking

Global Screen

Cinemaking

Cinemaking is a Largest International Film Distribution and Coproduction Company in South Asia.  Organizer of the Cinemaking International Film Award (CIFA) and Co organizer of the Cinemaking International Film Festival (CIFF)

Founding Story 

মাধ্যমিক পাশ করার পরেই আমার ইচ্চা হলো শুধু কবিতা, গল্প লেখা-লেখি করে হচ্ছেনা, সিনেমা নির্মান করতে হবে। যদিও সিনেমার ভূত আমার মাথায় আরো আগেই চেপেছিলো। মাধ্যমিক পরিক্ষার পরে ফলাফল প্রকাশের আগে যে সময় টুকু পাওয়া যায় সেই সময়েই আমার গ্রামের ছোট ছোট বাচ্চাদের নিয়ে নির্মান করলাম ৩ টি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র, সময় ২০০৮। স্থানীয় ক্যাবল টিভিতে প্রচার হবার পরে খুবই ভালো রেসপন্স পেলাম। আগ্রহ বেড়ে গেলো। কিন্তু উচ্চ শিক্ষায় বিভোর থাকায় সিনেমার নিশা আমাকে সাময়িক স্থগিত করলো। ২০১৪ সালে প্রকৌশল পড়া লেখা শেষ করেই কলেজে জয়েন করলাম, কিন্তু চাকরি ভালো লাগলো না। কারণ পড়ালেখার পাশাপাশি ইতমধ্যেই আমার সাংবাদিকতাও চলছিলো।

২০১৫ সালে, অত্যান্ত সখের বশেই একটি আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে সমন্বয়ক ও গ্রাফিক ডিজাইনার হিসাবে যোগদান করলাম, পাশাপাশি চললো, স্বলপ্লদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মান ও নানা কর্মশালা এবং শিখার চেষ্টা। বিশ্ব চলচ্চিত্র নিয়ে পড়ালেখা শুরু করলাম, জানার চেষ্টা করলাম আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব সম্পর্কে। বিভিন্ন সনামধন্য পরিচালকেদের চলচ্চিত্র পৃথিবীর বিভিন্ন উৎসবে প্রেরণের মাধ্যমে অভিজ্ঞতা অর্জনের পাশাপাশি কিছু দিন পরামর্শক হিসেবে একটি প্রডাকশন কম্পানীতে চাকুরী করলাম।

২০১৭ সালে সিনেম্যাকিং নামে ফেসবুক পেজ তৈরী করে বিশ্বের নানা দেশের চলচ্চিত্র নির্মাতা, প্রযোজক, পরিবেশক ও উৎসব আয়োজকদের সাথে একটা যোগাযোগের সুযোগ হয় এবং কিছুটা পরিচিতি পাই। এর মধ্যেই আসামের গুয়াহাটি আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে আমন্ত্রণ পেলাম। প্রথম বার দেশের বাহিরে আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের আমন্ত্রণ আমাকে মুগ্ধ করলো। অংশগ্রহণ করালাম। ততদিনে সিনেম্যাকিং এর মাধ্যমে বহুদেশে পরামর্শক হিসাবে কাজ করে যাচ্ছি। সার্ক চলচ্চিত্র উৎসবের দুইবার বাংলাদেশী সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করলাম। ইন্দুস ভেলী আন্তর্জাতিকি চলচ্চিত্র উৎসব দিল্লীর, বাংলাদেশ সম্বন্নয়কের দায়িত্ব পালন করলাম। মাঝে কিছুদিন একটা বিজ্ঞাপনী সংস্থাতেও সম্পৃক্ত থেকে অভিজ্ঞতা নিলাম।

২০১৮ সালের শেষের দিকে প্রতিষ্ঠা করি ইন্টারন্যাশনাল নেটওয়ার্ক ফর ফিল্ম ডেভেলোপমেন্ট এবং ২০১৯ সালের জানুয়ারীতে চাকুরী থেকে অবসর নিয়ে সিনেম্যাকিং এর ব্যবসায় আন্তনিয়োগ করলাম। সুযোগ পেলাম ইউরোপের দেশ জর্জিয়ার গোল্ডেন বাটারফ্লাই চলচ্চিত্র উৎসবের দক্ষিন এশিয়া বিষয়ক সমন্বয়কের দায়িত্ব পালনের। সফল ভাবে এই দায়িত্ব পালন শেষে বিভিন্ন চলচ্চিত্র উৎসব সমূহেও অংশগ্রহণ করতে থাকলাম এবং বিভিন্ন দেশের সিনেমা অনলাইনে দেখে পরামর্শ ও উৎসবে জমাদিতে সহায়তা করতে থাকলাম। ২০১৯ সালের মাঝামাঝি থেকে একটি উৎসব করার পরিকল্পনা থাকলেও হয়ে উঠেনি, ফেস্টিভালের নাম কি হবে এটা নিয়ে যথেষ্ট গবেষনার পরে সিনেম্যাকিং আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব নাম চূড়ান্ত করি। তবে এই উৎসবে সিনেমা জমাদানের অভিনব পদ্ধতি আবিস্কার করেছি, যা পৃথিবীর প্রথম চলচ্চিত্র উৎসব যেখানে সরাসরি সিনেমা জমা দেওয়ার কোন পদ্ধতি নেই। এই উৎসবে জমা দেওয়ার আগে সিনেমাকে অবশ্যই সিনেম্যাকিং এ্যাওয়ার্ড পেতে হয়। ২০১৯ সালে আসামে ও কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে ডেলিগেট হিসাবে অংশ গ্রহণ শেষে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করলাম ২০২০ সাল থেকে আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র আয়োজন করবো এবং উৎসব হবে প্রতি বছর ডিসেম্বর মাসে। ২০২০ সালে রাজস্থান আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে জুরী হওয়ার মধ্য দিয়ে এ পর্যন্ত ৬ টি আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে জুরী হয়েছি।

বর্তমানে সিনেম্যাকিং ৭০ অধিক দেশের শতাধিক আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের সাথে সম্পৃক্ত হয়েছে পরামর্শক, পরিবেশক ও সহযোগি হিসাবে । ২০১৭ সালে প্রতিষ্ঠিত সিনেম্যাকিং পরামর্শক সেবা দিয়ে শুরু করলেও দক্ষিন এশিয়ার সবচেয়ে বড় আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব পরিবেশক এবং চলচ্চিত্র সহপ্রযোজক প্রতিষ্ঠান। সিনেমা নির্মানের বিভিন্ন কারিগরী সেবাও প্রদান কের সিনেম্যাকিং। সেই সাথে সিনেম্যাকিং আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের প্রথম সংস্করণেই অর্ধশতাধিক দেশের দেড়শতাধিক চলচ্চিত্র নিয়ে উৎসব করায় আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র ব্যাক্তিত্বরা ভূয়সী প্রশংসা করছেন। শুরুতে সিনেম্যাকিং এর পথচলা সহজ ছিলোনা, নানা বাধা অতিক্রম করে সিনেম্যাকিং এগিয়ে যাচ্ছে, শুধুই সিনেমার উন্নয়নে সিনেমার লোকদের সাথে। আমাদের এই পথের সঙ্গী সিনেমা সংশ্লিষ্ট সকলেই।

মনজুরুল ইসলাম মেঘ
প্রতিষ্ঠাতা ও সত্তাধিকারী
সিনেম্যাকিং

Message from CEO

সিনেমা একটি পন্য, চাই মার্কেটিং। প্রচার মানেই মার্কেটিং নয়। ফেসবুক লাইফ, টিভি টকশো করলেই সিনেমার মার্কেটিং হয়না। আপনি যদি ফেসবুক রিভিউ আর ইউটিউব রিয়েকশন নিয়ে সুখি থাকেন তাহলে আপনি সেই দর্শকই পাবেন যে আপনার সিনেমা ইউটিউবে দেখার অপেক্ষা করছে।
 
আমরা হল চাই, বিদেশি সিনেমাও দেখতে চাই। মঞ্চ নাটক চাই, যাত্রাপালা চাই, ভালো বাংলা সিনেমা চাই। সব কিছুর আগে টাকা, সেটাও চাই। সিনেমা আপনার কাছে বিনোদন হলেও আমার কাছে পন্য, তাই আমি ব্যবসাহিক চিন্তাই আগে করি।
 
আমরা বাজারে এসেছি বাংলাদেশী সিনেমাকে সারাবিশ্বে ছড়িয়ে দিতে অনুরুপ ভাবে বিশ্বের ভালো ভালো চলচ্চিতত্রের সাথে বাংলাদেশী দর্শকদের পরিচিত করে দিতে চাই। আমরা নিজেদের প্রযোজনার পাশাপাশি যে কোন প্রতিষ্ঠানের প্রযোজিত সিনেমা নিয়ে কাজ করি।  সিনেম্যাকিং আসলে চায় চলচ্চিত্রে কিছু মানুষের কর্মসংস্থান হোক ও সুস্থ সাংস্কৃতিক চর্চা হোক!
 
জয় হোক চলচ্চিত্রের…
বাংলা চলচ্চিত্র বিশ্ব জয় করুক
মনজুরুল ইসলাম মেঘ
প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা
সিনেম্যাকিং

Cinemaking International Film Festival 

২০২০ সাল থেকে ঢাকা ফেস্টিভালের সাথে আমরা সহ আয়োজক হিসেবে আয়োজন করছি সিনেম্যাকিং আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব। এই উৎসবে প্রদর্শনের আগে সিনেমাকে অবশ্যই সিনেম্যাকিং এ্যাওয়ার্ড পেয়ে নমিনেশন পেতে হয়। আমাদের উৎসবের মাধ্যমে বাংলাদেশী দর্শকদের কে বৈশ্বিক চলচ্চিত্রের সাথে পরিচয় করে দেওয়া ও সাংস্কৃতিক বিনিময় করাই লক্ষ্য। বিভিন্ন দেশের চলচ্চিত্র বাংলাদেশে প্রদর্শিত হওয়ায় বাংলাদেশের নাম পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে উচ্চারিত হচ্ছে, দেশের প্রতি আমাদের এই সামান্য মমত্ববোধ ও ভালবাসা আমাদের অবিচল থাকবে।
মনজুরুল ইসলাম মেঘ
উৎসব পরিচালক
সিনেম্যাকিং আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব